চাকরির দেয়ার নামে প্রতারণা!!
বিশেষ প্রতিনিধিby বিশেষ প্রতিনিধিসেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৯
চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার ফাঁদ পেতে বসে আছে বেশ কয়েকটি কোম্পানি। আপনার আশেপাশে পরিচিত অনেকেই দেখবেন আপনাকে লোভনীয় চাকরির লোভ দেখাবে। যা কিনা কোন চাকরীর সংজ্ঞার আওতায় পড়েনা। 
তেমনি একটি প্রতিষ্ঠানের নাম Lifeway Bangladesh private Limited এরা S.S.C, H.S.C, Degree এবং Masters পাশ এমনকি ডিপ্লোমা ইন্জিনিয়ার, , শিক্ষিত,অশিক্ষিত, বিশেষ করে বেকারদের সাথে প্রতারণা, সিটি ইলেক্ট্রিক & সিরামিক,নোভা, এল জি ইত্যাদি। কোম্পানিতে চাকরি দেওয়ার নামে ৫০ থেকে ৩০ হাজার টাকা মিথ্যা জামানত ও মাসে ১০-১৩ হাজার টাকা বেতন, বিভিন্ন জায়গায় সফর করানো,সপ্তাহে ১ দিনবন্ধ সহ, নানা রকম লোভনীয় কথা বলে মানুষকে প্রতারিত এবং নিস্ব করছে গাজিপুর চোরাস্তায় সহ গাজিপুর বোর্ড বাজার শহিদ সিদ্দিক রোডের ডান পাশে ৫ ম তলা বিল্ডিং এ অবস্থিত ভুয়া মাল্টিলেভেল কোম্পানি " " লাইফওয়ে বাংলাদেশ প্রাইভেট লিঃ" যা সম্পুর্ন অবৈধ, ভুয়া & প্রতারক এই কোম্পানিটি। এই কোম্পানির মূল কাজ হচ্ছে লোক জয়েন করানো। সিটি,নোভা,এল জি,এই সব চায়না ইলেক্ট্রিক & সিরামিক কোম্পানির কথা বলে সারা দেশের বিভিন্ন গ্রাম থেকে মানুষকে মিথ্যা বলে গাজিপুর নিয়ে এসে জিম্মি অবস্থায় রাখা হয়। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে থাকে এই সব মানুষ। শর্টকাটে ধনী হওয়ার বিভিন্ন টেকনিক শেখানো হয় তাদের। আর নানা রকম কাল্পনিক মিথ্যা, বানোয়াট লোভনীয় কথা বার্তা বলে মগজ ধোলাই করা হয় গ্রাম থেকে আসা মানুষদের। কয়েকটি ট্রেনিং করিয়ে তার পিছনে আরও লোক আনতে বলা হয়। লোক আনতে না পাড়লে, লোক না দিলে কোন বেতন নাই। লোক দিতে পাড়লে কিছু কমিশন দেওয়া হয়। লোক যদি ৫০ হাজারের হয় ৩ হাজার টাকা, ৪০ হাজারের হলে ২ হাজার টাকা এবং ৩০ হাজারেরহলে ১ হাজার টাকার কমিশন দেওয়া হয়। এই কথা গুলিপরে বলা হয়, আগে বলা হয় না।

 

চাকরির নামে প্রতারণা
গ্রামের অসহায় মানুষ গুলো জমি বন্ধক রেখে/গরু বিক্রি করে/ সুদের টাকা নিয়ে/ কিস্তি থেকে টাকা নিয়ে / টাকা ধার-কর্জ করে চাকরীতে অাসে। এরা জোর পুর্বক পরিচিত মানুষের নাম, পেশা, আয় কত ইত্যাদি সম্পর্কে তালিকা লেখা ওতাদের কাছে ফোন করানো হয়। এখনও বহু মানুষতাদের হাতে জিম্মি অবস্থায় আছে। বাড়ি থেকে কল করলে বলতে বাধ্য করা হয়, আমি অনেক ভালো আছি, অনেক সুখে আছি। কেউ কেউ খালি হাতে জীবন নিয়ে পালিয়ে আসে। যে কোম্পানিতে চাকরির কথা বলে নিয়ে যাওয়া হয়, অফিসে গিয়ে দেখে অন্য একটা কোম্পানি ,যা বলা হয়েছে তা নয়, অন্য একটা কোম্পানি যা লাইফওয়ে বাংলাদেশ প্রাইভেট লিঃ। যখন কেউ আমি চাকরি করব না এবং টাকার জন্য প্রশ্ন করা হয় তখন তারামাত্র ৮ হাজার টাকার নাম মাত্র বাজে পন্য ধরিয়ে দিয়ে জীবন নাশের হুমকি দিয়ে একটা স্টাম পেপারে সই/ দস্তখর নিয়ে বিদায় করে দেয়। ৩০ হাজারের মধ্য মাত্র ৮ হাজার টাকার খুবই নিম্নমানের পন্য ধরিয়ে দিয়েবাকি টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক কোম্পানিটি। প্রতারিত ব্যক্তিকে জীবনের হুমকি দিয়ে তারিয়ে দিচ্ছে।
এই কোম্পানির বিরুদ্ধে অনেক বার বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। মামলাও হয়েছে। তার পরও এই কোম্পানিটি মানুষের সাথে ধোঁকাবাজি করে যাচ্ছে। প্রাশাসনের সামনে ঘটছে এই সব, অথচ তারা নিরব। স্থানীয় প্রাশাসনকে মেনেজ করে মানুষের সাথে চলছে দিন দুপুরে এমন ডাকাতি ও ধোঁকাবাজি। ধ্বংস ও নিস্ব করা হচ্ছে সারা দেশের গরিব দু:খী পরিবারকে। প্রতিদিন শত শত মানুষ প্রতারিত ও সব হারিয়ে নিস্ব হয়ে চোখের জল ফেলছে অসহায় মানুষ। এত বড় অপরাধ করেও পার পেয়ে যাচ্ছে এই প্রতারক চক্র। এ যেন দেখার কেউ ই নেই। এছাড়াও এরা নিচের নাম গুলো ব্যবহার করে।
1. City agency
2. City group of company
3. City electronics group of company
4. LifeWay bangladesh pvt. ltd
5. MG group of company
★অফিস যে স্থানে আছেঃ
১। গাজীপুর বোর্ড বাজার অফি (board bazar office)
২। গাজীপুর চৌরাস্তা জয়দেবপুর রোড পুলিশ ফাঁড়ির সামনে ( gazipur chowrasta office)
৩। সাভার অফিস (saver office)
৪। গুলশান অফিস
৫। উত্তরা অফিস

 

চাকরির নামে প্রতারণা বন্ধ হোক
দেশে শিক্ষিত ও অর্ধশিক্ষিত মিলিয়ে বেকারের সংখ্যা প্রায় ৪ কোটি। চাকরির খোঁজে এরা প্রতিনিয়ত দ্বারস্থ হচ্ছে বিভিন্নজনের। তবে সোনার হরিণরূপী চাকরি পেতে গিয়ে অনেক সময় তাদের হতে হয় প্রতারণার শিকার।
সরকারি চাকরি পেতে বিভিন্ন সময় বেকারদের মোটা অঙ্কের টাকা গুনতে হয় বলে প্রায়ই শোনা যায়।
তবে ইদানীং বেসরকারি চাকরি পেতে গিয়েও কিছু কিছু ক্ষেত্রে হয়রানির শিকার হচ্ছে কর্মহীন এ জনগোষ্ঠী। বেকারদের কেন্দ্র করে নগরীতে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন প্রতারক চক্র। এরা বিভিন্নভাবে বেকার জনগোষ্ঠীকে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করে।
প্রতারকদের ফাঁদে পড়ে অনেক সময় সহজসরল বেকারদের হারাতে হয় গচ্ছিত অর্থ। তবে এক্ষেত্রে শিক্ষিত বেকারদের তুলনায় অর্ধশিক্ষিত বেকারদের প্রতারণার শিকার হতে হয় বেশি।
দেখা যায়, বিভিন্ন জব সাইট থেকে বেকারদের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে প্রতারক চক্র বেকারদের বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করে থাকে। অনেক সময় বিভিন্ন জব সাইটে সার্কুলার দিয়েও প্রতারণা করতে দেখা যায় কিছু প্রতারক চক্রকে।
বিদেশে চাকরি কিংবা আর্কষণীয় চাকরির অফার দিয়ে এরা প্রতারণার সূচনা করে। কোনো ধরনের পরীক্ষা কিংবা সাক্ষাৎকার না নিয়েই খুদেবার্তা আর ই-মেইলের মাধ্যমে নির্দিষ্ট বেকারদের জানানো হয় চাকরি পাওয়ার মতো উদ্ভট ঘটনা!
পাশাপাশি চাকরি নিশ্চিত করার জন্য বলা হয়, কয়েক ঘণ্টার মধ্যে মেডিকেল চেকআপ করতে। চেকআপের জন্য কয়েক হাজার টাকা নিয়ে নির্দিষ্ট মেডিকেল ক্লিনিক কিংবা হাসপাতালে গিয়ে হাজিরা দেয়ার নির্দেশনাও দেয় প্রতারক গোষ্ঠী। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই মেডিকেল চেকআপের নাম করে ওই টাকা নিয়েই উধাও হয়ে যায় প্রতারক চক্র।
এছাড়া কিছু চাকরির ক্ষেত্রে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার নাম করে বিভিন্ন প্রার্থীর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগও শোনা যায়। এসব প্রতারণা ছাড়াও ভুয়া জব কনসালটেন্সি খুলে চাকরি দেয়ার নাম করে টাকা নেয়া কিংবা চাকরির সাক্ষাৎকারের ব্যবস্থা করে দেয়ার নাম করে টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনাও এখন হরহামেশাই ঘটছে।
ফলে সহজসরল তরুণ বেকাররা চাকরি না পেয়ে উল্টো বিপদে পড়ছে। দুঃখজনক হল, প্রকাশ্যে এসব অপকর্ম করেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই প্রতারক চক্র ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে আরও জোরাল ও কঠোর ভূমিকা পালন করা দরকার


পোস্ট টি সর্বোচ্চ শেয়ার/ forward করে সারা দেশের মানুষদের সচেতন করে/ জানিয়ে দিন।